মডিউল-১

মডিউল-১, সেশন-২ঃ ফার্মাসিস্ট কোড অব ইথিকস এবং মডেল মেডিসিন শপে গ্রেড ‘সি’ ফার্মাসিস্টদের (ফার্মেসি টেকনিশিয়ান) দায়িত্ব ও কর্তব্য

মডিউল-২

মডিউল-৪

মডিউল-৪, সেশন-৩ঃ ওষুধ প্রয়োগের পথ

মডিউল-৫

মডিউল-৫, সেশন-২ঃ শুধুমাত্র প্রেসক্রিপশনের মাধ্যমেই ক্রেতার নিকট বিক্রয়যোগ্য ওষুধসমূহ (Prescription Only Medicines)

মডিউল-৭

মডিউল-৭, সেশন-২ঃ এ্যান্টিবায়োটিকের অকার্যকর হওয়া যেভাবে ছড়িয়ে পড়ে

মডিউল-৮

মডিউল-৮, সেশন-২ঃ করোনা সংক্রমণকালীন নিরাপদ ওষুধ ডিসপেন্সিংয়ের ক্ষেত্রে সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা অনুসরণ

লেসন-১.১ঃ শ্বাসতন্ত্রের অসুখ ও সেগুলো নিরাময়ে ব্যবহৃত ওষুধসমূহ

হাঁপানী/ এজমা (Asthma)

সংজ্ঞা ও ওভারভিউ

  • হাঁপানী ফুসফুসের একটি দীর্ঘমেয়াদী রোগ যার বৈশিষ্ট্য হচ্ছে শ্বাসকষ্ট এবং নিঃশ্বাসের সময় শিসের মত অথবা সোঁ সোঁ করে শব্দ হয় (wheezing);
  • হাঁপানী বয়স্কদের চেয়ে শিশুদের বেশী হয়;
  • বেশীরভাগ হাঁপানী রোগীর নাকে অ্যালার্জি, হাঁপানী বা একজিমার পারিবারিক ইতিহাসও রয়েছে।

লক্ষণ ও উপসর্গ

  • ঘন ঘন নিঃশ্বাস নেয়া;
  • নিঃশ্বাসের সময় শিসের মত শব্দ হয় (হুইজিং);
  • রাত্রিকালীন কাশি, বিশেষ করে শিশুদের;
  • বুকে চাপ ধরা;

নোট: এই উপসর্গগুলো রাতে ও ভোরে খুব বেশী হয়

হাঁপানীর কারণ

হাঁপানীর নির্দিষ্ট কারণ জানা নেই তবে নীচের যেকোনটি থেকে হাঁপানীর আরম্ভ হতে পারে:

  • বাড়ীতে বিড়াল থাকলে;
  • তেলাপোকা থাকলে;
  • ধূমপান করলে;
  • বাড়ীর ধূলায় ক্ষুদ্র পরজীবি থাকলে;
  • শরীরচর্চা/ব্যায়াম;
  • পারফিউম ব্যবহার করলে;
  • ঠান্ডা আবহাওয়া

ক্রনিক অবসট্রাকটিভ পালমোনারী ডিজিজ (সিওপিডি/COPD)

  • COPD-র (ক্রনিক ব্রঙ্কাইটিস ও এমফাইসিমা) চিকিৎসা প্রাথমিকভাবে উপসর্গভিত্তিক ও কষ্ট লাঘবকারী;
  • যাতে ব্রঙ্কোডাইলেটর, কর্টিকোষ্টেরয়েড ও অক্সিজেন থেরাপী ব্যবহৃত হয়;
  • শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমন প্রতিরোধ করা উচিত;
  • জ্যানথিন, যেমন – মুখে থিওফাইলিন দেয়া যেতে পারে;
  • দীর্ঘমেয়াদী অক্সিজেন থেরাপী, সিওপিডি রোগীর বেঁচে থাকার সময়কে বাড়ায়।

নিম্নোক্ত ওষুধ দ্বারা চিকিৎসা

১। সালবিউটামল

  • সালবিউটামল হচ্ছে স্বল্পসময়ের জন্য কার্যকরী β২ এড্রেনার্জিক রিসেপ্টর;
  • সালবিউটামল ব্যবহৃত হয় হুইজিং, ঘন ঘন শ্বাস, কাশি ও বুক চেপে আসার প্রতিরোধ ও চিকিৎসার জন্য, যেগুলোর কারণ হচ্ছে হাঁপানী এবং সিওপিডি-র মত ফুসফুসের রোগ।

২। বামবিউটেরল

  • বামবিউটেরল হচ্ছে টারবিউটালিনের প্রো-ড্রাগ যা ক্রনিক হাঁপানীর জন্য দেয়া হয়।

৩। বেকলোমেথাসন

  • বেকলোমেথাসন একটি সিনথেটিক ষ্টেরয়েড যা হাঁপানীর জন্য দেয়া হয়।

৪। বিটলটেরল

  • বিটলটেরল একটি ব্রঙ্কোডাইলেটর, যা হাঁপানী ও অন্যান্য শ্বাসতন্ত্রের রোগে সৃষ্ট ব্রঙ্কোস্পাজম থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য দেয়া হয়।

৫। বিউডেসোনাইড

  • বিউডেসোনাইড একটি কর্টিকোষ্টেরয়েড যা ইনফ্লামেটরি বাওয়েল ডিজিজ/আইবিএস, হাঁপানী ও শ্বাসের সমস্যাতেও দেয়া হয়।

কাশির ওষুধ

১। কাশি নিবারণকারী;

২। কাশি নির্গমণকারী ও স্বস্তিদানকারী।

১। কাশি নিবারণকারী

  • কাশি সাধারণত শরীরের ভিতরের কোন রোগের একটি উপসর্গ, যেমন – হাঁপানী ও গ্যাসট্রো-ইসোফেজিয়াল রিফ্লাক্স ডিজিজ;
  • যেখানে কোন কারণ সনাক্ত করা যাচ্ছে না, সেখানে কাশি নিবারণকারী ওষুধ আরাম দিতে পারে;
  • থুতু/কফ জমে যেতে পারে যা ক্রনিক ব্রঙ্কাইটিস ও ব্রঙ্কিয়েকটাসিস রোগীর জন্য ক্ষতিকর;
  • কোডিন কার্যকরী হতে পারে, তবে এটা কোষ্ঠকাঠিন্য তৈরি করে ও নির্ভরশীলতা বাড়ায়; ডেক্সট্রোমিথরফেন ও ফলকোডিনের পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া কম;
  • ব্রমহেক্সিন একটি মিউকোলাইটিক এজেন্ট যা আঠালো ও অতিরিক্ত মিউকাসযুক্ত শ্বাসতন্ত্রের রোগে ব্যবহৃত হয়;

এমব্রক্সল হাইড্রোক্লোরাইড

নির্দেশনা

একিউট ব্রঙ্কাইটিসসহ আঠালো মিউকাসযুক্ত একিউট ও ক্রনিক শ্বাসতন্ত্রের রোগ, প্রডাকটিভ কাশি, ল্যারিনজাইটিস, ফ্যারিনজাইটিস, সাইনুসাইটিস ও রাইনাইটিস, এজমাটিক ব্রঙ্কাইটিস, ব্রঙ্কিয়েকটাসিস ও ক্রনিক নিউমোনিয়া।

সতর্কতা

গ্যাসট্রিক ও ডিওডেনাল আলসার, কনভালসিভ ডিসঅর্ডার, রেনাল ও হেপাটিক ইমপেয়ারমেন্ট রোগীকে সাবধানে দিতে হবে।

বিরুদ্ধ ব্যবহার

এমব্রক্সল বা ব্রমহেক্সিন-এ অত্যাধিক সংবেদনশীলতার ইতিহাস থাকলে ব্যবহার করা যাবে না।

মাত্রা

১০ বছরের বেশী ও বয়স্কদের জন্য ১০ মিলি (২ চা-চামচ) দিনে ৩ বার; ৫-১০ বছরের শিশুদের জন্য ৫ মিলি (১ চা-চামচ) দিনে ২-৩ বার।

সংরক্ষণ

ওষুধের ধরন অনুসারে বাক্সের গায়ে অথবা ওষুধের বাক্সে প্রদত্ত লিফলেটে নির্দেশিত নিয়মে সংরক্ষণ করতে হবে।