মডিউল-১

মডিউল-১, সেশন-২ঃ ফার্মাসিস্ট কোড অব ইথিকস এবং মডেল মেডিসিন শপে গ্রেড ‘সি’ ফার্মাসিস্টদের (ফার্মেসি টেকনিশিয়ান) দায়িত্ব ও কর্তব্য

মডিউল-২

মডিউল-৪

মডিউল-৪, সেশন-৩ঃ ওষুধ প্রয়োগের পথ

মডিউল-৫

মডিউল-৫, সেশন-২ঃ শুধুমাত্র প্রেসক্রিপশনের মাধ্যমেই ক্রেতার নিকট বিক্রয়যোগ্য ওষুধসমূহ (Prescription Only Medicines)

মডিউল-৭

মডিউল-৭, সেশন-২ঃ এ্যান্টিবায়োটিকের অকার্যকর হওয়া যেভাবে ছড়িয়ে পড়ে

মডিউল-৮

মডিউল-৮, সেশন-২ঃ করোনা সংক্রমণকালীন নিরাপদ ওষুধ ডিসপেন্সিংয়ের ক্ষেত্রে সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা অনুসরণ

ধাপ-২ঃ ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী ওষুধসমূহ সরবরাহের জন্য একত্রিত করা

ধাপ-২ঃ ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী ওষুধসমূহ সরবরাহের জন্য একত্রিত করা

  • যে সকল ওষুধ ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী সরবরাহ করা হবে সেগুলোর নামগুলো ভালোভাবে কয়েকবার মিলিয়ে নিন;
  • যে ওষুধ সেবনের জন্য লেখা হয়েছে সেটির স্ট্রেন্থ সম্পর্কে নিশ্চিত হউন;
  • যে পরিমাণ ওষুধ সেবন/ব্যবহার করতে হবে সে সংখ্যা/পরিমাণ এবং কয়দিন সেবন/ব্যবহার করতে হবে তা ভালো করে দেখে নিন;
  • ওষুধের পাত্রটি ভালোভাবে মুছে পরিষ্কার করে নিন এবং মেয়াদ সম্পর্কে নিশ্চিত হোন;
  • কখনোই ওষুধকে তার পাত্র বা মোড়কের সাইজ, রং বা আকার দেখে চেনার চেষ্টা করবেন না কারণ অনেক ওষুধই দেখতে প্রায় একই রকম;

ডিসপেন্সিং এর জন্য ওষুধ সংগ্রহ করার ধাপসমূহ

ধাপ

সতর্কতার ব্যাখ্যা

ওষুধের নাম ভালোভাবে মিলিয়ে দেখুন

ভুল ওষুধ দেয়ার হাত থেকে বেঁচে থাকা যায়। বিশেষ করে যেগুলো প্রায় একই ধরনের নাম বা দেখতেও প্রায় একই রকম।

ওষুধের স্ট্রেন্থ ভালোভাবে দেখে মিলিয়ে নিন  

এতে  করে কোন শিশুকে পূর্ণবয়স্ক  লোকের  জন্য প্রযোজ্য  স্ট্রেন্থ  ওষুধ  বা পূর্ণবয়স্কদের শিশুর জন্য প্রযোজ্য স্ট্রেন্থ ওষুধ দেয়ার মত ভুল ঠেকানো যায়।

ওষুধ সেবনের/ব্যবহারের পরিমাণ এবং সময়ের পাথর্ক্য সম্পর্কে নিশ্চিত হোন

এতে করে প্রয়োজনের অতিরিক্ত বা কম ওষুধ প্রদানের মত বিড়ম্বনার শিকার হতে হয় না।

টীকা: ওষুধ দেয়ার আগে প্রয়োজনীয় পরিমাণ ওষুধ ভালোভাবে হিসাব করে নিন।

মোড়কের গায়ে বর্ণিত মেয়াদের তারিখ দেখে নিন

  • মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ সরবরাহের হাত থেকে রেহাই পাওয়া যায়।
  • আইনগত ঝামেলা বা জটিলতায় জড়ানোর হাত থেকে রেহাই পাওয়া যায়।

টীকা : এই ধাপটি সকল সময় সতর্কতার সাথে মেনে চলা উচিত।

কখনো  কোন  ওষুধকে  তার  পাত্র  বা মোড়কের রং, আকার বা সাইজ দেখে চেনার চেষ্টা না করা  

  • এতে ভুল ওষুধ ডিসপেন্সিং করা থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।
  • অনেক ওষুধই দেখতে প্রায় একই রকম থাকে।