মডিউল-১

মডিউল-১, সেশন-২ঃ ফার্মাসিস্ট কোড অব ইথিকস এবং মডেল মেডিসিন শপে গ্রেড ‘সি’ ফার্মাসিস্টদের (ফার্মেসি টেকনিশিয়ান) দায়িত্ব ও কর্তব্য

মডিউল-২

মডিউল-৪

মডিউল-৪, সেশন-৩ঃ ওষুধ প্রয়োগের পথ

মডিউল-৫

মডিউল-৫, সেশন-২ঃ শুধুমাত্র প্রেসক্রিপশনের মাধ্যমেই ক্রেতার নিকট বিক্রয়যোগ্য ওষুধসমূহ (Prescription Only Medicines)

মডিউল-৭

মডিউল-৭, সেশন-২ঃ এ্যান্টিবায়োটিকের অকার্যকর হওয়া যেভাবে ছড়িয়ে পড়ে

মডিউল-৮

মডিউল-৮, সেশন-২ঃ করোনা সংক্রমণকালীন নিরাপদ ওষুধ ডিসপেন্সিংয়ের ক্ষেত্রে সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা অনুসরণ

ধাপ-১ঃ ব্যবস্থাপত্রটি পড়ুন, পর্যালোচনা করুন এবং বুঝুন

ধাপ-১ঃ ব্যবস্থাপত্রটি পড়ুন, পর্যালোচনা করুন এবং বুঝুন

  • ব্যবস্থাপত্রটি বৈধ কিনা সে বিষয়ে নিশ্চিত হোন;
  • ব্যবস্থাপত্রটি সঠিকভাবে বুঝে নিন (যেমন: ব্যবস্থাপত্রে যে সকল শব্দসংক্ষেপ ব্যবহার করা হয় তার তালিকা দেখে নিন);
  • যদি আপনি চিকিৎসকের লেখা পড়তে না পারেন তবে চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করুন;
  • ওষুধের ডোজ, ডোজেস ফরম এবং কতদিন সেবন/ব্যবহার করতে হবে তা আবারো ভালোভাবে দেখে মিলিয়ে নিন;
  • আপনি নিশ্চিত না হলে আবারো জিজ্ঞাসা করুন – যাতে আপনি কি ডিসপেন্স করছেন তা বুঝতে পারেন;
  • যদি দেখেন যে একই ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী ৩ বার বা তার বেশি ওষুধ নেয়া হচ্ছে তবে রোগী বা গ্রাহককে পুনরায় চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে অনুরোধ করুন;

নিচের চেকলিস্টটি আপনাকে ব্যবস্থাপত্র পড়তে এবং বুঝতে সহায়তা করবেঃ

চেকলিস্ট

কেন দেখবেন

ব্যবস্থাপত্রের তারিখ চেক করুন

 ব্যবস্থাপত্রটি কবে দেয়া হয়েছে, তা পুরানো কিনা বা এখনো   ব্যবহার্য কিনা তা বুঝা যাবে।

কাকে বা কার নামে ব্যবস্থাপত্র দেয়া হয়েছে তার পরিচয় নিশ্চিত করুন

  • ব্যবস্থাপত্রের ওষুধপত্র সঠিক রোগী/গ্রাহককে পৌঁছানো   নিশ্চিত করে এবং তাদের ভুল
  •  ওষুধ বা অন্য রোগীর ওষুধ দেয়ার মত ভুল থেকে বিরত রাখে

ওষুধের নাম ও ডোজেস ফরম সম্পর্কে নিশ্চিত হোন

  • রোগীকে সঠিক ওষুধ দিতে সহায়তা করে।
  • অতিরিক্ত বা অপর্যাপ্ত ডোজ প্রদান থেকে বিরত থাকা যায়।
  • সঠিক স্ট্রেন্থ এর ওষুধ নির্বাচন করতে সহায়তা করে।

রোগীর বয়স এবং শরীরের ওজন পুনরায় মিলিয়ে নিন       

  • সঠিক ডোজ এর ওষুধ দিতে সহায়তা করবে।
  • যে সকল কারণে সেবন/ব্যবহার করা উচিত নয় তা চিহ্নিত করতে বা ভুল শুধরে নিতে সহায়তা করে।

রোগীর কাছ থেকে রোগ সম্পর্কে জেনে নিন

  • ওষুধ কেন দেয়া হলো তা ব্যাখ্যা করতে সাহায্য করে।
  • ওষুধের সঠিক ডোজেস নির্ধারণে ও চিকিৎসা কতদিন ধরে চলবে সেটি নিশ্চিত হতে সহায়তা করে।

ব্যবস্থাপত্রে লিখিত ওষুধসমূহের পারস্পরিক বিক্রিয়া এবং সেবনের ক্ষেত্রে কোন নিষেধ

থাকলে তা ভালোভবে দেখে নিন     

  • কোন রোগী বা গ্রাহককে কোন ভুল ওষুধ দেয়া থেকে বিরত রাখে
  • ব্যবস্থাপত্রের ওষুধসমূহের মধ্যে পারস্পরিক কোন জ্ঞাত বিক্রিয়া না থাকলে রোগীর চিকিৎসা ভালো হয়।
  • এর দ্বারা রোগীর কোন ক্ষতি বা জটিলতা তৈরির সম্ভাবনা কমে।

একটি আদর্শ ব্যবস্থাপত্রে নিম্নলিখিত তথ্যগুলো থাকা উচিত

  • যে স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান থেকে ব্যবস্থাপত্রটি দেয়া হয়েছে তার নাম;
  • রোগীর নাম ও বয়স;
  • তারিখ;
  • যিনি ওষুধসমূহ লিখেছেন তার নাম, পদবী ও স্বাক্ষর থাকবে (শিশুর ক্ষেত্রে বিশেষ সতর্কতা গ্রহণ করা উচিত);
  • ওষুধসমূহের নাম;
  • ওষুধের ডোজেস ফরম;
  • ওষুধের ডোজ, কখন এবং দিনে কতবার সেবন করবে;
  • চিকিৎসা কতদিন চলবে।

ওষুধের জেনেরিক নাম ও ট্রেড/ ব্যবসায়িক নাম

আমাদের দেশে সাধারণত রোগীর ব্যবস্থাপত্রে ওষুধসমূহ ট্রেড/ব্যবসায়িক নামে লেখা হয় তবে ট্রেড/ব্যবসায়িক নামের সাথে জেনেরিক নাম লেখা হলে আরো ভালো হতো, যেমন – নাপা (প্যারাসিটামল) জেনেরিক নামসমূহ আন্তর্জাতিক কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে দেয়া হয়ে থাকে। পৃথিবীর প্রায় সর্বত্রই কোন একটি ওষুধের একই জেনেরিক নাম ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

জেনেরিক নামের উদাহারণ

  • প্যারাসিটামল;
  • কুইনাইন;
  • ডাইক্লোফেনাক;
  • মেবেনডাজল;
  • মেট্রোনিডাজল;
  • লুমিফেনট্রিন;
  • সিপ্রোফ্লোক্সাসিন;
  • জেন্টামাইসিন।

ওষুধসমূহের প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানসমূহ তাদের প্রস্তুতকৃত ওষুধের ট্রেড/ব্যবসায়িক নামকরণ করেন। ট্রেড/ব্যবসায়িক নামসমূহ সাধারণত ছোট হয়, সহজে মনে রাখা যায় এবং লেখা যায় এবং এর মাধ্যমে চিকিৎসকগণকে ট্রেড/ ব্যবসায়িক নামগুলো জেনিরিক নামের চাইতে বেশি বেশি ব্যবহার করতে উৎসাহিত করে।

ট্রেড/ব্যবসায়িক নামের উদাহরণসমূহ

জেনেরিক নাম

ব্যবসায়িক/ট্রেড নাম

প্রস্তুতকারকের নাম

প্যারাসিটামল

নাপা

এইস

এক্সপা

বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যাল

স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যাল

এরিস্টোফার্মা ফার্মাসিউটিক্যাল

আরটিমেথার/ লুমিফ্যানট্রিন

লুমারটেম

স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড

স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড

এমোক্সিসিলিন

এমোক্সিল

গ্ল্যাক্সোস্মথিকলোইন (বাংলাদেশ) লিমিটেড