Lesson List
এন্টিবায়োটিকের বিরুদ্ধে জীবানুর প্রতিরোধ (অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল রেজিষ্ট্যান্স/এএমআর)
অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল রেজিষ্ট্যান্স বা ন্টিবায়োটিকের বিরুদ্ধে রোগ জীবানুর প্রতিরোধ বৈশ্বিক জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্রমবর্ধমান হুমকি সংক্রামক রোগের জনস্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনার উপর গুরুতর প্রভাব ফেলছে। এখন রোগ প্রতিরোধকদের প্রতিরোধ ক্ষমতাকে প্রতিহত করতে ক্ষুদ্র রোগ জীবানুগুলো সক্ষম হয়ে উঠছে, এতে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই দেহে ওষুধ কম কার্যকরী অথবা অকার্যকরী হচ্ছে। অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়ালের অযৌক্তিক ও অনুপযুক্ত ব্যবহারের কারনে যে অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল রেজিষ্ট্যান্স বা রোগ জীবানুর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ তৈরি হচ্ছে, সেটির স্বাভাবিক পরিনতি সহজেই বোধগম্য। নির্বাচনমূলক চাহিদার কারনে ওষুধের রেজিষ্ট্যান্সের সাথে অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়ালের অতিরিক্ত ও অপ্রয়োজনীয় ব্যবহারের সম্পর্ক চিহ্নিত হয়েছে। নিয়ন্ত্রনকারী কর্র্তৃপক্ষ ও নীতি নির্ধারকদের মনোযোগের অভাবসহ অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল ব্যবহার সম্পর্কে ভ্রান্তজ্ঞান এবং রোগী ও প্রেসক্রিপশনকারীর মধ্যে অপর্যাপ্ত আলোচনা, অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল রেজিষ্ট্যান্সের উত্থান ও বিস্তারকে আরো জটিল করে তুলেছে। প্রস্তাবিত চিকিৎসাসহ রোগীর সন্মতি আরেকটি সমস্যা। প্রেসক্রিপশন ছাড়া ওষুধের সহজলভ্যতা বাংলাদেশে ও অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়ালের মানের অভাব এই উত্থানকে আরো প্রভাবিত করে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও অন্যান্য আন্তর্জাতিক সংস্থাসমূহ অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল রেজিষ্ট্যান্সকে সংক্রামক রোগের ব্যবস্থাপনার জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি হিসাবে ঠিকভাবেই তুলে ধরেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য এসেম্বলী রেজুলেশন ১৯৯৮ সদস্য দেশগুলোকে অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল রেজিষ্ট্যান্স নিয়ন্ত্রন করার জন্য নীচেরগুলোসহ একাধিক পদক্ষেপ নিতে আহ্বান জানিয়েছিল: ১. অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়ালের উপযুক্ত ও সাশ্রয়ী ব্যবহার করতে উৎসাহিত করা; ২. কোন যোগ্যতা সম্পন্ন, পেশাদার স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর দেয়া প্রেসক্রিপশন ছাড়া অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল বিতরন নিষিদ্ধ করা; ৩. সংক্রমনের বিস্তার রোধ করা ও তারপর রেজিষ্ট্যান্ট রোগ জীবানুর বিস্তার রোধ করার কাজে উন্নয়ন ঘটানো; ৪. ভেজালঅ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল উৎপাদন, বিক্রি ও বিতরন রোধকরা এবং অবৈধ/ বেআইনী বাজারে অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল বিক্রি রোধ করার আইন শক্তিশালীকরন; ৫. পশু খাদ্য তৈরিতে অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়ালের ব্যবহার কমানো।
0/4
যক্ষারোগ সংক্রান্ত
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সর্বশেষ বৈশ্বিক যক্ষ্মা প্রতিবেদন ২০১৬ এবং ৪০ জন দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞের সমন্বয়ে গঠিত যৌথ পর্যবেক্ষণ মিশন বাংলাদেশে যক্ষ্মা রোগের সার্বিক পরিস্থিতি সম্পর্কে যে তথ্য প্রকাশ করেছে, তা সত্যিই উদ্বেগজনক। বৈশ্বিক যক্ষ্মা প্রতিবেদন অনুযায়ী, দেশে প্রতিদিন প্রায় এক হাজার মানুষ যক্ষ্মায় আক্রান্ত হচ্ছে। আর দিনে ২০০ মানুষের মৃত্যু হচ্ছে। আর যৌথ পর্যবেক্ষণ মিশনের মতে, যক্ষ্মা এখনো বাংলাদেশের জন্য বড় ধরনের জনস্বাস্থ্য সমস্যা হিসেবে রয়ে গেছে। ৪০ শতাংশ যক্ষ্মা রোগী এবং ৮০ শতাংশ ওষুধ প্রতিরোধী যক্ষ্মা রোগী এখনো শনাক্ত হচ্ছে না। যৌথ পর্যবেক্ষণ মিশন জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচি মূল্যায়ন করে এই কর্মসূচির বেশ কিছু ত্রুটি ও দুর্বলতাও খুঁজে পেয়েছে। যক্ষ্মা একটি মারাত্মক ছোঁয়াচে রোগ। এই রোগের বেশ কিছু লক্ষণ রয়েছে। তবে অনেক সময় শারীরিক রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বেশি থাকলে যক্ষ্মার লক্ষণ সহজে প্রকাশ হয় না। বিপদটা এখানেই, লক্ষণ প্রকাশ না পেলে কেউ চিকিৎসকের কাছে যান না। আবার অনেকে যক্ষ্মা রোগের লক্ষণ সম্পর্কেও খুব একটা ওয়াকিবহাল নন। যক্ষ্মা রোগীদের জন্য এমনিতে সরকার বিনা মূল্যে চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছে। দেশের সব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, জেলা সদর হাসপাতাল, বক্ষব্যাধি ক্লিনিক বা হাসপাতাল, নগর স্বাস্থ্যকেন্দ্র, এনজিও ক্লিনিক ও মেডিকেল কলেজ হাসপাতালগুলোতে বিনা মূল্যে কফ পরীক্ষা, রোগ নির্ণয়সহ যক্ষ্মার চিকিৎসা এবং ওষুধ দেওয়া হয়। এগুলো নিঃসন্দেহে সরকারের প্রশংসনীয় উদ্যোগ। তারপরও দেশে যে হারে মানুষ যক্ষ্মায় আক্রান্ত হচ্ছে ও মারা যাচ্ছে, তাতে বোঝা যায়, এ ক্ষেত্রে আরও কিছু করণীয় রয়েছে। যক্ষ্মা রোগী শনাক্ত না হওয়াটা সবচেয়ে উদ্বেগের বিষয়। এ জন্য সচেতনতার দিকে নজর দেওয়া জরুরি। যক্ষ্মা রোগের বিপদ এবং এর লক্ষণ সম্পর্কে ব্যাপক প্রচারণা চালাতে হবে, যাতে দেশের সব মানুষ জানতে পারে। দেশের প্রতিটি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যক্ষ্মা শনাক্তকরণের আধুনিক যন্ত্রপাতি স্থাপন করতে হবে। একই সঙ্গে জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির ত্রুটি ও দুর্বলতা শনাক্ত করে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে। এ ক্ষেত্রে সময় নষ্ট করার কোনো সুযোগ নেই।
0/2
Lesson: ব্যক্টেরিয়া কি?
About Lesson

ব্যাকটেরিয়া (ইংরেজিBacteria/bækˈtɪəriə/ (এই শব্দ সম্পর্কেশুনুন)একবচনbacterium) হলো এক প্রকারের আদি নিউক্লিয়াসযুক্ত,অসবুজ, এককোষী অণুজীব যেগুলো খালি চোখে দেখা যায় না। ব্যাকটেরিয়া আণুবীক্ষণিক জীব। বিজ্ঞানী অ্যান্টনি ভ্যান লিউয়েন হুক সর্বপ্রথম ১৬৭৫ খ্রিস্টাব্দে বৃষ্টির পানির মধ্যে নিজের তৈরি সরল অণুবীক্ষণযন্ত্রের নিচে ব্যাকটেরিয়া পর্যবেক্ষণ করেন। আদিকোষী অণুজীবদের একটি বিরাট অধিজগৎ ব্যাকটেরিয়া নিয়ে গঠিত। সাধারণত দৈর্ঘ্যে কয়েক মাইক্রোমিটার ব্যাকটেরিয়ার বিভিন্ন ধরনের আকৃতি রয়েছে, গোলকাকৃতি থেকে দণ্ডাকৃতি ও সর্পিলাকার পর্যন্ত ব্যাপ্ত। গোড়ার দিকে পৃথিবীতে যেসব রূপে প্রাণের আবির্ভাব ঘটেছিল, ব্যাকটেরিয়া তাদের মধ্যে অন্যতম। পৃথিবীর অধিকাংশ আবাসস্থলেই ব্যাকটেরিয়া বিদ্যমান রয়েছে। ব্যাকটেরিয়া মাটি, জল,আম্লিক উষ্ণ ঝরনা,তেজস্ক্রিয় বর্জ্য[২] এবং ভূত্বকের গভীর জীবমণ্ডলে বাস করে। ব্যাকটেরিয়া উদ্ভিদ ও প্রাণীর সাথে মিথোজীবী ও পরজীবী সংসর্গেও বাস করে। বেশিরভাগ ব্যাকটেরিয়া চিহ্নিত হয়নি এবং মাত্র প্রায় ২৭ শতাংশ ব্যাকটেরিয়া পর্বের প্রজাতিগুলোকে গবেষণাগারে আবাদ (Culture) করা যায়। সচরাচর এক গ্রাম মাটিতে প্রায় ৪ কোটি (বা ৪০ মিলিয়ন) ব্যাকটেরিয়া এবং ১ মিলিলিটার মিঠা জলে দশ লাখ (বা এক মিলিয়ন) ব্যাকটেরিয়া থাকে। পৃথিবীতে আনুমানিক প্রায় ৫×১০৩০ টি ব্যাকটেরিয়া আছে। একটি ব্যাক্টেরিয় ১-৩ ঘন্টায় লক্ষাধিক বাচ্চা বাক্টেরিয়ার জন্ম দিতে সক্ষম। এ কারণেই সংক্রমণ দেহে ছড়িয়ে যেতে পারে যদি দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা পরাজিত হয় অথবা যদি এন্টিবায়োটিক দিয়ে ব্যাক্টেরিয়াকে মেরে ফেলা না যায়।

প্রায় সকল প্রাণী টিকে থাকার জন্য ব্যাকটেরিয়ার ওপর নির্ভরশীল কারণ কেবল ব্যাকটেরিয়া ও কিছু আর্কিয়া ভিটামিন বি১২ (যা কোবালামিন নামেও পরিচিত) সংশ্লেষ করার প্রয়োজনীয় জিন ও উৎসেচক ধারণ করে। ব্যাকটেরিয়া ভিটামিন বি১২ খাদ্য শৃঙখলের মাধ্যমে যোগান দেয়। ভিটামিন বি১২ জলে দ্রবণীয় একটি ভিটামিন যা মানবদেহের প্রতিটি কোষের বিপাকে জড়িত। এটি ডিএনএ সংশ্লেষণে এবং ফ্যাটি অ্যসিড ও অ্যামিনো এসিড উভয়ের বিপাকে একটি সহউৎপাদক (Cofactor) হিসেবে ভূমিকা রাখে। মায়েলিন সংশ্লেষণে ভূমিকা রাখার মাধ্যমে স্নায়ুতন্ত্রের স্বাভাবিক ক্রিয়ায় ভিটামিন বি১২ বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ।[

 

Exercise Files
No Attachment Found
No Attachment Found
Lesson List
এন্টিবায়োটিকের বিরুদ্ধে জীবানুর প্রতিরোধ (অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল রেজিষ্ট্যান্স/এএমআর)
অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল রেজিষ্ট্যান্স বা ন্টিবায়োটিকের বিরুদ্ধে রোগ জীবানুর প্রতিরোধ বৈশ্বিক জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্রমবর্ধমান হুমকি সংক্রামক রোগের জনস্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনার উপর গুরুতর প্রভাব ফেলছে। এখন রোগ প্রতিরোধকদের প্রতিরোধ ক্ষমতাকে প্রতিহত করতে ক্ষুদ্র রোগ জীবানুগুলো সক্ষম হয়ে উঠছে, এতে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই দেহে ওষুধ কম কার্যকরী অথবা অকার্যকরী হচ্ছে। অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়ালের অযৌক্তিক ও অনুপযুক্ত ব্যবহারের কারনে যে অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল রেজিষ্ট্যান্স বা রোগ জীবানুর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ তৈরি হচ্ছে, সেটির স্বাভাবিক পরিনতি সহজেই বোধগম্য। নির্বাচনমূলক চাহিদার কারনে ওষুধের রেজিষ্ট্যান্সের সাথে অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়ালের অতিরিক্ত ও অপ্রয়োজনীয় ব্যবহারের সম্পর্ক চিহ্নিত হয়েছে। নিয়ন্ত্রনকারী কর্র্তৃপক্ষ ও নীতি নির্ধারকদের মনোযোগের অভাবসহ অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল ব্যবহার সম্পর্কে ভ্রান্তজ্ঞান এবং রোগী ও প্রেসক্রিপশনকারীর মধ্যে অপর্যাপ্ত আলোচনা, অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল রেজিষ্ট্যান্সের উত্থান ও বিস্তারকে আরো জটিল করে তুলেছে। প্রস্তাবিত চিকিৎসাসহ রোগীর সন্মতি আরেকটি সমস্যা। প্রেসক্রিপশন ছাড়া ওষুধের সহজলভ্যতা বাংলাদেশে ও অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়ালের মানের অভাব এই উত্থানকে আরো প্রভাবিত করে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও অন্যান্য আন্তর্জাতিক সংস্থাসমূহ অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল রেজিষ্ট্যান্সকে সংক্রামক রোগের ব্যবস্থাপনার জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি হিসাবে ঠিকভাবেই তুলে ধরেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য এসেম্বলী রেজুলেশন ১৯৯৮ সদস্য দেশগুলোকে অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল রেজিষ্ট্যান্স নিয়ন্ত্রন করার জন্য নীচেরগুলোসহ একাধিক পদক্ষেপ নিতে আহ্বান জানিয়েছিল: ১. অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়ালের উপযুক্ত ও সাশ্রয়ী ব্যবহার করতে উৎসাহিত করা; ২. কোন যোগ্যতা সম্পন্ন, পেশাদার স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর দেয়া প্রেসক্রিপশন ছাড়া অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল বিতরন নিষিদ্ধ করা; ৩. সংক্রমনের বিস্তার রোধ করা ও তারপর রেজিষ্ট্যান্ট রোগ জীবানুর বিস্তার রোধ করার কাজে উন্নয়ন ঘটানো; ৪. ভেজালঅ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল উৎপাদন, বিক্রি ও বিতরন রোধকরা এবং অবৈধ/ বেআইনী বাজারে অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল বিক্রি রোধ করার আইন শক্তিশালীকরন; ৫. পশু খাদ্য তৈরিতে অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়ালের ব্যবহার কমানো।
0/4
যক্ষারোগ সংক্রান্ত
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সর্বশেষ বৈশ্বিক যক্ষ্মা প্রতিবেদন ২০১৬ এবং ৪০ জন দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞের সমন্বয়ে গঠিত যৌথ পর্যবেক্ষণ মিশন বাংলাদেশে যক্ষ্মা রোগের সার্বিক পরিস্থিতি সম্পর্কে যে তথ্য প্রকাশ করেছে, তা সত্যিই উদ্বেগজনক। বৈশ্বিক যক্ষ্মা প্রতিবেদন অনুযায়ী, দেশে প্রতিদিন প্রায় এক হাজার মানুষ যক্ষ্মায় আক্রান্ত হচ্ছে। আর দিনে ২০০ মানুষের মৃত্যু হচ্ছে। আর যৌথ পর্যবেক্ষণ মিশনের মতে, যক্ষ্মা এখনো বাংলাদেশের জন্য বড় ধরনের জনস্বাস্থ্য সমস্যা হিসেবে রয়ে গেছে। ৪০ শতাংশ যক্ষ্মা রোগী এবং ৮০ শতাংশ ওষুধ প্রতিরোধী যক্ষ্মা রোগী এখনো শনাক্ত হচ্ছে না। যৌথ পর্যবেক্ষণ মিশন জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচি মূল্যায়ন করে এই কর্মসূচির বেশ কিছু ত্রুটি ও দুর্বলতাও খুঁজে পেয়েছে। যক্ষ্মা একটি মারাত্মক ছোঁয়াচে রোগ। এই রোগের বেশ কিছু লক্ষণ রয়েছে। তবে অনেক সময় শারীরিক রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বেশি থাকলে যক্ষ্মার লক্ষণ সহজে প্রকাশ হয় না। বিপদটা এখানেই, লক্ষণ প্রকাশ না পেলে কেউ চিকিৎসকের কাছে যান না। আবার অনেকে যক্ষ্মা রোগের লক্ষণ সম্পর্কেও খুব একটা ওয়াকিবহাল নন। যক্ষ্মা রোগীদের জন্য এমনিতে সরকার বিনা মূল্যে চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছে। দেশের সব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, জেলা সদর হাসপাতাল, বক্ষব্যাধি ক্লিনিক বা হাসপাতাল, নগর স্বাস্থ্যকেন্দ্র, এনজিও ক্লিনিক ও মেডিকেল কলেজ হাসপাতালগুলোতে বিনা মূল্যে কফ পরীক্ষা, রোগ নির্ণয়সহ যক্ষ্মার চিকিৎসা এবং ওষুধ দেওয়া হয়। এগুলো নিঃসন্দেহে সরকারের প্রশংসনীয় উদ্যোগ। তারপরও দেশে যে হারে মানুষ যক্ষ্মায় আক্রান্ত হচ্ছে ও মারা যাচ্ছে, তাতে বোঝা যায়, এ ক্ষেত্রে আরও কিছু করণীয় রয়েছে। যক্ষ্মা রোগী শনাক্ত না হওয়াটা সবচেয়ে উদ্বেগের বিষয়। এ জন্য সচেতনতার দিকে নজর দেওয়া জরুরি। যক্ষ্মা রোগের বিপদ এবং এর লক্ষণ সম্পর্কে ব্যাপক প্রচারণা চালাতে হবে, যাতে দেশের সব মানুষ জানতে পারে। দেশের প্রতিটি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যক্ষ্মা শনাক্তকরণের আধুনিক যন্ত্রপাতি স্থাপন করতে হবে। একই সঙ্গে জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির ত্রুটি ও দুর্বলতা শনাক্ত করে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে। এ ক্ষেত্রে সময় নষ্ট করার কোনো সুযোগ নেই।
0/2
0% Complete